শিরোনাম
ভারতে করোনা সরাতে শরীরে গোবর, রোগ বাড়ার আশঙ্কা, সতর্ক করলেন চিকিৎসকরা টিকা আনতে চীনে গেছে বিমানবাহিনীর উড়োজাহাজ আল আকসায় সন্ত্রাসী হামলার নিন্দা জানিয়েছে বাংলাদেশ ইয়াহুদিবাদীদের বিরুদ্ধে বিশ্বমুসলিম নেতৃত্বকে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে : পীর সাহেব চরমোনাই ৫ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করেছে হেফাজত কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মানার শর্তে চালু হতে পারে গণপরিবহন ২৫ তারিখ থেকে সীমিত পরিসরে খুলছে দোকানপাট রমজানে আলেম-উলামা ও তৌহিদী জনতার উপর জুলুম-নির্যাতন বন্ধ করুন : বাবুনগরী এবার আগফানিস্তান থেকে সেনা সরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল জার্মানিও ওমানে বাংলাদেশিদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা
বুধবার, ১২ মে ২০২১, ০২:৩১ অপরাহ্ন
add

কোরআনের ২৬টি আয়াত নিষিদ্ধের দাবি খারিজ করেছে ভারতের আদালত

কওমি ভিশন ডেস্ক
প্রকাশের সময় : সোমবার, ১২ এপ্রিল, ২০২১
add

কুরআন শরীফের ২৬টি আয়াত নিষিদ্ধ ঘোষণার দাবিতে করা একটি জনস্বার্থ পিটিশন সোমবার সরাসরি খারিজ করে দিয়েছে ভারতের সুপ্রিমকোর্ট।

শুধু তাই নয়, এরকম একটি ‘সম্পূর্ণ অর্থহীন’ পিটিশন দাখিল করার জন্য আবেদনকারী সৈয়দ ওয়াসিম রিজভিকে ৫০ হাজার রুপি জরিমানাও করা হয়েছে।

সৈয়দ ওয়াসিম রিজভি উত্তরপ্রদেশের শিয়া ওয়াকফ বোর্ডের একজন সাবেক চেয়ারম্যান এবং দেশের শিয়া মুসলিম সমাজের একজন প্রভাবশালী নেতা।

গত ডিসেম্বরে তিনি কুরআনের বিশেষ কয়েকটি আয়াত অসাংবিধানিক ঘোষণার দাবিতে শীর্ষ আদালতের শরণাপন্ন হয়েছিলেন। এই আয়াতগুলো মূল কোরআনের অংশ নয় বলেও পিটিশনে দাবি করা হয়েছিল।

তার যুক্তি ছিল, এই আয়াতগুলো মুসলিমদের তরুণ প্রজন্মকে শিখিয়ে বিধর্মীদের, বিশেষত মূর্তিপূজায় বিশ্বাসীদের হত্যা করতে উৎসাহিত করা হচ্ছে।

বিভিন্ন সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠী বিধর্মীদের ওপর হামলা চালানোর ‘সাফাই’ হিসেবে এই আয়াতগুলো কাজে লাগাচ্ছে বলেও যুক্তি দেয়া হয়েছিল।

কিন্তু সুপ্রিমকোর্টে সোমবার প্রথম দিনের শুনানিতেই তিনজন বিচারপতির বেঞ্চ আবেদনটিকে ‘পুরোপুরি ভিত্তিহীন’ বলে নাকচ করে দিয়েছেন।

বেঞ্চের নেতৃত্বে ছিলেন জাস্টিস রোহিংটন নরিম্যান, তিনি এমনও প্রশ্ন তোলেন, ‘আবেদনকারী কি এই পিটিশন নিয়ে সত্যিই সিরিয়াস? আমরা তো বিশ্বাসই করতে পারছি না!’

অর্থহীন বিষয় নিয়ে মামলা রুজু করে আদালতের সময় নষ্ট করার জন্য আবেদনকারীর আর্থিক জরিমানা করারও সিদ্ধান্ত নেয় শীর্ষ আদালত।

তবে সুপ্রিমকোর্টে এই মামলার শুনানির আগেই ভারতের নানা মহলে সৈয়দ ওয়াসিম রিজভির পদক্ষেপের বিরুদ্ধে তীব্র সমালোচনা শুরু হয়েছিল।

অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ডের সাধারণ সম্পাদক মৌলানা মাহমুদ দরিয়াবাদী বিবৃতি দিয়ে বলেছিলেন, ‘পবিত্র কুরআনের কোনো আয়াত মানুষকে সহিংসতায় প্ররোচিত করে বলে আমরা বিশ্বাস করি না।’

অল ইন্ডিয়া শিয়া পার্সোনাল ল বোর্ড এবং আরো নানা মুসলিম সংগঠনের পক্ষ থেকেও অভিযোগ আনা হয়েছিল, সৈয়দ ওয়াসিম রিজভি ‘সম্পূর্ণ প্রসঙ্গ-বহির্ভূতভাবে কুরআনের অপব্যাখ্যা’ করার চেষ্টা চালাচ্ছেন।

ভারতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিঘ্নিত করার অভিযোগে রিজভিকে নোটিশ পাঠিয়েছিল দেশের জাতীয় সংখ্যালঘু কমিশনও।

দক্ষিণ ভারতের আর্কটের নবাব মহম্মদ আবদুল আলিও বিবৃতি দিয়ে বলেছিলেন, ভারতের সুপ্রিমকোর্ট যদি এই আবেদনটি শুনানির জন্য গ্রহণ করে তাহলে সেটা হবে নাগরিকদের ধর্মীয় স্বাধীনতার লঙ্ঘন।

শুধু ভারতে নয়, প্রতিবেশী বাংলাদেশেও খেলাফত মজলিসসহ বিভিন্ন ইসলামপন্থী সংগঠন কুরআনের আয়াত নিষিদ্ধ করার দাবিকে ‘আল্লাহর সাথে চরম ধৃষ্টতার শামিল’ বলে বর্ণনা করেছিল

Leave a comment

add

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: