শিরোনাম
জুমার মিম্বার থেকে বাবুনগরী : আল্লাহ ফেরআউনকেও সুযোগ দিয়েছেন, তবে ছেড়ে দেননি আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার নিয়ে ভারতের উদ্বেগ মসজিদ-মাদ্রাসা উন্মুক্ত রাখার আহ্বান জানিয়ে মুফতি আজম আবদুচ্ছালাম চাটগামীর খোলা চিঠি রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে হেফাজত আমীর আল্লামা বাবুনগরীর আহ্বান গ্রেফতার আতঙ্কে ঘর ছাড়া হাজারো আলেম, দুর্ভোগে পরিবার মসজিদ লক করার ইখতিয়ার কারো নেই : মুফতি সাখাওয়াত চিকিৎসা বিজ্ঞান মতে রোজার অতুলনীয় উপকার, বিবিসির প্রতিবেদন পবিত্র রমজান মাসের চাঁদ দেখা গিয়েছে, কাল রোজা ইসলামাবাদীসহ গ্রেফতারকৃত হেফাজত নেতাকর্মীদের মুক্তি দিতে হবে : আমীরে হেফাজত  আল্লামা শফীর ইনতিকাল স্বাভাবিক, পিবিআইয়ের রিপোর্ট উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মিথ্যাচার : হেফাজত আমির
শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ১২:৩৯ পূর্বাহ্ন
add

নবীন আলেমদের উদ্দেশ্যে আল্লামা বাবুনগরীর মূল্যবান নসিহত

এইচ.এম. জুনায়েদ
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৯ মার্চ, ২০২১
add

এশিয়া বিখ্যাত প্রাচীনতম দীনি বিদ্যাপীঠ  আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী দারুল হাদিস (মাস্টার্স) -এর সর্বোচ্চ বিশুদ্ধ কিতাব বুখারি শরিফের আখেরি সবক (সমাপনী পাঠদান) করেছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির, হাটহাজারী মাদরাসার শায়খুল হাদিস ও শিক্ষা-পরিচালক আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী।

কোন ধরনের আনুষ্ঠানিকতা ছাড়াই গতকাল ৮ ই মার্চ বাদ ইশা এশিয়ার বৃহত্তর হাদিসের দরসগাহ, দারুল উলুম হাটহাজারীর দাওরায়ে হাদিস মিলনায়তনে (মাস্টার্স সমাপনী) দুই সহস্রাধিক নবীন আলেমকে বুখারি শরিফের শেষ সবকের পাঠদান ও যুগোপযোগী মূল্যবান নসিহত করেন তিনি। এ সময় দাওরায়ে হাদিসের বিদায়ী শিক্ষার্থী ছাড়াও মাদরাসার অন্যান্য শ্রেণির ছাত্র ও স্বেচ্ছায় আগত কিছু মেহমানের উপস্থিতিতে দাওরায়ে হাদিস মিলনায়তন কানায় কানায় ভরপুর হয়ে যায়।

বাদ ইশা হাদিসের মূল (মতন) পাঠ শেষে সংক্ষিপ্ত আকারে সাহাবা যুগ থেকে শুরু করে সর্বযুগে হাদিস সংরক্ষণের ইতিহাস এবং উপমহাদেশে দরসে হাদিসের ইতিহাস তুলে ধরেন আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী।

হাদিসের গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ্য করে বলেন, মানবজাতির কল্যাণ ও হেদায়াতের শাশ্বত ধর্ম ইসলাম কুরআন মাজিদ ও হাদিসে রাসুলের সমন্বয়ে। আল্লাহর কালাম পবিত্র কুরআন মাজিদের ব্যাখ্যায় হাদিসে রাসুলের গুরুত্ব অপরিসীম। হাদিসে রাসুল ইসলামের অবিচ্ছেদ্য অংশ ৷ শুধু কুরআন দ্বারা ইসলামের যাবতীয় বিধিবিধান বোঝা সম্ভব নয়। পবিত্র কুরআন বুঝতে হাদিসের  প্রয়োজন। আরবী ভাষাভাষী সাহাবায়ে কেরামগণও পবিত্র কুরআনের সংক্ষিপ্ত রূপ বুঝতে হাদিসের সহযোগিতা নিয়েছেন।

আল্লামা বাবুনগরী বোখারি শরিফের গ্রন্থকার ইমাম মুহাম্মাদ ইবনু ইসমাঈল আল বোখারি রহ. -এর সংক্ষিপ্ত জীবনী ও বোখারি শরিফের গ্রহণযোগ্যতা উল্লেখ করে বোখারি শরিফের প্রথম কিতাব এবং শেষ কিতাব, প্রথম অধ্যায় ও শেষ অধ্যায়, প্রথম হাদিস, শেষ হাদিস, উভয় হাদিসের সনদ পরস্পরা ও রাবী বা বর্ণণাকারীর সামঞ্জস্যতা তুলে ধরেন৷

দাওরায়ে হাদিসে ছাত্রদের উদ্দেশ্যে আল্লামা বাবুনগরী বলেন, আপনারা দেশ ও জাতির কল্যাণে মুসলিম উম্মাহর ইমান রক্ষায় নিবেদিতপ্রাণ হয়ে কাজ করবেন। বাতিলের মোকাবেলায় হকের আওয়াজ বুলন্দ রাখবেন এবং বাতিলের সাথে প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষ কোনোভাবে আপোষ করবেন না৷

আপনারা কারা, আপনাদের দায়িত্ব আর কর্তব্য কী? এটা আপনাদেরকে খুব ভালো করে বুঝতে হবে।  আপনাদের সম্পর্ক অনেক ওপরে। দারুল উলুম হাটহাজারী, দারুল উলুম দেওবন্দের সম্পর্ক রাসুলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের প্রতিষ্ঠিত মক্কার দারে আরকাম আর মদিনার দারুসসুফফার সাথে। সে হিসেবে আপনাদের মূল শিকড় গেঁথে আছে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাথে। আপনাদের ইতিহাস সোনালী ইতিহাস। আপনাদের পূর্বসূরিতে সাহাবায়ে কেরামের মোবারক জামাত রয়েছে। আরো রয়েছে তাবেয়িন, তাবে-তাবেয়িন, আয়িম্মায়ে মুজতাহেদিন, ছালফে সালেহিন, মুহাদ্দিসিন এবং আকাবিরে দেওবন্দ ও আকাবিরে হাটহাজারীর মত মকবুল জামাত। এসব সম্পর্ক আপনাদের সাথে থাকায় আপনাদের ওপর এক মহান জিম্মাদারি অর্পিত হয়েছে।

হে আমার প্রিয় বিদায়ী ছাত্র ভাইয়েরা!

ইসলাম মুসলমান, দেশ ও জাতীর ক্লান্তিলগ্নে উম্মুল মাদারিস হাটহাজারী থেকে আপনারা আজ বিদায় নিতে যাচ্ছেন। মনে রাখবেন, জাতি চাতক পাখির ন্যায় আপনাদের জন্য অপেক্ষমান। সততা, ন্যায়নিষ্ঠ আর সাহসিকতার মাধ্যমে পিপাসিত ও তৃষ্ণার্ত এ জাতির যোগ্য নেতৃত্ব আপনাদেরকেই দিতে হবে। দিশেহারা এ জাতির ইহলৌকিক ও পারলৌকিক সফলতার সঠিক পথ আপনাদেরকেই দেখাতে হবে।

আমার কলিজার টুকরা প্রিয় তালিবে ইলম ভাইয়েরা! পড়ালেখার দীর্ঘ একটি অধ্যায় সমাপ্ত করে আজ আপনারা বিদায়ী কাফেলা। বিদায়লগ্নে অত্যন্ত ব্যথা ভারাক্রান্ত হৃদয়ে আপনাদের উদ্দেশ্যে কিছু নসিহত ও দিকনির্দেশনা পেশ করছি। আপনাদের বর্ণিল কর্মজীবনে এই নসিহত সমূহ পাথেয় এবং মাইলফলক হবে, ইনশাআল্লাহ।

✍ জীবনের সর্বক্ষেত্রে আহলুস সুন্নাত ওয়াল জামাতের অনুসরণ করতে হবে, আকিদা ও আমল উভয় ক্ষেত্রে। কারো রক্তচক্ষু কিংবা কোনো রকম লোভ-লালসা যেন  আপনাদেরকে এই পথ থেকে ফেরাতে না পারে। এই জামাতে থাকলে দারুল উলুম হাটহাজারীর সনদ আপনাদের জন্য হবে, এই জামাত থেকে বের হয়ে গেলে আমার বা আমাদের পক্ষ থেকে ইলমে হাদিস প্রচার করতে আপনাদের জন্য কোনো ইযাযত নেই। সম্পূর্ণ সনদ ও ইযাযত বাতিল হয়ে যাবে। জীবনের সর্বক্ষেত্রে রাসুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এবং সাহাবায়ে কেরামের পদাঙ্ক অনুসরণ করতে হবে। তবেই আপনারা কামিয়াব হবেন দুনিয়া এবং আখেরাতে।

✍ এহসান ও তাযকিয়া তথা আত্মশুদ্ধি অর্জন করতে হবে। এর অপর নাম হচ্ছে তরিকত। বাহ্যিক ইলমের সাথে আধ্যাত্মিক জ্ঞান লাভ করতে হবে। উলামায়ে দেওবন্দ এবং উলামায়ে হাটহাজারীর একহাতে আছে শরিয়তের পাত্র অপর হাতে আছে তরিকতের ঝাণ্ডা। তারা উভয় হাতে এসবের ব্যবহার করতে পারে। এক হাতে শরিয়তের পাত্র আঁকড়ে ধরে আছে, অপর হাতে তরিকতের ঝাণ্ডা ওড়াচ্ছে। এটা ওলামায়ে দেওবন্দ ওলামায়ে হাটহাজারীর বৈশিষ্ট্য। দেওয়ানবাগী-কুতুববাগী,আটরশি-ভাণ্ডারি তারা তরিকতের ঝাণ্ডার আঘাতে শরিয়তের পাত্র ভেঙ্গে চুরমার করে দিয়েছে। শরিয়ত ছাড়া যেহেতু তরিকত হয় না, তাই তাদের কাছে শরিয়ত তো নেই-ই, তরিকতও নেই। তারা গোমরাহ!!

তাই কোনো একজন খাঁটি সুন্নাতি পীরে কামেলের হাতে বায়’আত হয়ে অন্তরের বিশুদ্ধতা অর্জনের জন্য পথনির্দেশিকা নিবেন।

✍ দুনিয়াবি যশ-খ্যাতি পায়ের নিচে রাখতে হবে। জীবনের প্রতিটি কাজ একমাত্র আল্লাহ পাকের সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষ্যে করতে হবে।

✍ জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সুন্নাতকে আঁকড়ে ধরতে হবে। ব্যক্তিগত জীবন, পারিবারিক জীবন, সামাজিক জীবন, রাষ্ট্রীয় জীবন এবং আন্তর্জাতিক জীবনে নবীজির সুন্নাতকে প্রতিষ্ঠা করতে হবে।

✍ ফিরাকে বাতিলা তথা ভ্রান্ত জনগোষ্ঠীর প্রতিবাদ ও প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। বয়ান বক্তৃতা, লিখনীসহ সমূহ পদ্ধতিতে তাদের মোকাবেলা করতে হবে। বর্তমানে সবচে নিকৃষ্ট এবং ঘৃণিত ভ্রান্তদল হচ্ছে নাস্তিক্যবাদী সম্প্রদায়। তাদের প্রতিরোধে দুর্বার সংগ্রাম করতে হবে। তাদের প্রতিরোধ করার জন্য তাদের রচিত বইপুস্তক অধ্যয়ন করে ক্রুটিবিচ্যুতিগুলো খুঁজে বের করে দলিল ভিত্তিক এর সমূচিত জবাব দিতে হবে।

✍ আপনারা মাদ্রাসার লাইনে খেদমত করবেন। দরস তাদরিস এটা হলো আপনাদের  মূলকাজ। কারণ, বর্তমানে দরস ও তাদরিসের লাইনে যোগ্য আলেমের বড়ই অভাব। আপনাদেরকে এ বিষয়ে এগিয়ে আসতে হবে। নিজেদের এলাকায় কওমি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করবেন। কওমি মাদ্রাসার গুরুত্ব অপরিসীম। বর্তমানে একেকটি কওমি মাদ্রাসা ইমান আকিদা ও ইসলাম রক্ষার মজবুত দূর্গ। যে কোনভাবে দীনি খেদমতে লেগে থাকবেন। ছোট্ট একটা নুরানী মক্তব অথবা হেফযখানায় হলেও দীনি খেদমতে লেগে থাকবেন। কোনো মাদ্রাসায় খেদমতে গেলে নিজ থেকে কোনো কিতাব পড়ানোর আগ্রহ দেখাবেন না। কারণ, এতে বরকত থাকে না। মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ যে কিতাব আপনাদেরকে পড়াতে দিবেন, সেগুলোর দরস দেবেন। এবং প্রতিটি সবক মুতালা’আ করে পড়াবেন। মুতালা’আ ছাড়া পড়াবেন না।

✍ ইসলাম বিরোধী শিক্ষানীতির মাধ্যমে আজ মুসলমানদের ইমান ছিনিয়ে নেওয়ার সুদূরপ্রসারী ষড়যন্ত্র চলছে। শিক্ষা সিলেবাসে ডারউইনের বিবর্তনবাদ ঢুকিয়ে ইমান আকিদা বিনষ্ট করা হচ্ছে। এসব শিক্ষা সিলেবাস পরিবর্তন করে ইসলামি শিক্ষা সিলেবাস প্রণয়ন করতে হবে। এ ক্ষেত্রে আপনারা নবীন আলেমরা অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে।

✍ দাওয়াত ও তাবলিগের কাজ করবেন। দাওয়াত ও তাবলিগের কাজের নেতৃত্ব আপনারা দিতে হবে। বর্তমানে এই মেহনতে উলামায়ে কেরামের কমতি থাকায় সাধারণ মানুষ সহিহ দীনের জ্ঞান কম পাচ্ছে। তাই এ কাজে আপনাদের অংশগ্রহণ বাড়াতে হবে।

✍ আজকের যুগে মিডিয়ার গুরুত্ব অপরিসীম। মিডিয়া জগতে আজ নাস্তিক্যবাদী অপশক্তির আগ্রাসন। তাদের এই আস্ফালন রুখতে হবে। এজন্য আপনাদের শক্ত হাতে কলম ধরতে হবে। বর্তমান ইয়াহুদিবাদী মিডিয়ার মোকাবেলায় নিজেদের শক্তিশালী ইসলামি মিডিয়া প্রতিষ্ঠা করতে হবে। আজকের যুগে মিডিয়ার গুরুত্ব অপরিসীম।

✍ সঠিক ইসলামি রাজনীতি করবেন। এটাও ইসলামের একটি শাখা। বর্তমানে নোংরা রাজনীতির চর্চা হচ্ছে। বর্তমানে রাজনীতি ইসলাম থেকে অনেক দূরে। তাই এগুলো রাজনীতি নয়, সন্ত্রাসবাদি কর্মকাণ্ডের ইন্ধনদাতা হয়ে গেছে বর্তমানের অপরাজনীতি। আপনারা সঠিক ইসলামী রাজনীতিও করবেন, যেন সমাজ থেকে সন্ত্রাসবাদ দূরীভূত হয়ে যায়।

✍ যদি উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি হয়, তাহলে আল্লাহর জমিনে আল্লাহর হুকুম প্রতিষ্ঠার জন্য জিহাদ করবেন। জিহাদ সন্ত্রাস নয় আর সন্ত্রাস জিহাদ নয়। জিহাদ হচ্ছে সন্ত্রাস দমনের মাধ্যম। আজ সর্বত্র জিহাদের অপব্যাখ্যা করে মুসলমানদেরকে সন্ত্রাসী ও জঙ্গীবাদি সাজানোর অপচেষ্টা চলছে। জিহাদের অপব্যাখ্যা বন্ধে আপনাদের ভূমিকা রাখতে হবে, জিহাদের সঠিক ব্যখ্যা জাতির সামনে তুলে ধরতে হবে।

প্রায় পৌনে তিনঘণ্টা ব্যাপী সমাপনী দরস নসিহত শেষে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের আকিদা-বিশ্বাসের ওপর অটল-অবিচল থাকা এবং বাতিলের সাথে আপোষ না করা, এ দু’শর্তে উপস্থিত ২০২০-২১ সমাপনী বর্ষের ছাত্রদেরকে হাদিস অধ্যয়ন ও অধ্যাপনার ইযাযত (অনুমতি) প্রদান করে দেশ ও জাতীর কল্যাণে মহান প্রভুর দরবারে কায়মনোবাক্যে দুআ করেন হাটহাজারী মাদরাসার শায়খুল হাদিস ও শিক্ষা পরিচালক আমীরে হেফাজত আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী।


শ্রুতলিখন:

জুনাইদ আহমদ

শিক্ষার্থী, দারুল উলুম হাটহাজারী

Leave a comment

add

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: